ইলিশ মাছ – পদ্মার ইলিশ কিভাবে চিনবেন? পুষ্টিগুণ ও অন্যান্য

Food Habit Health and Body

বাঙালির প্রিয় খাদ্যের তালিকায় সবচেয়ে উপরের স্থানে থাকা খাবারটির নাম নির্দ্বিধায় বলে দেওয়া যায় ইলিশ মাছ। অতুলনীয় স্বাদের এই মাছ স্বাদে যেমন অন্যন্য তেমনি পুষ্টিগুণেও বেশ এগিয়ে। এই মাছের রয়েছে প্রচুর পুষ্টি গুণাগুণ। যেকোনো মাছের তুলনায় স্বাদ ও পুষ্টির দিকে ইলিশ অনেক এগিয়ে। বাঙালি সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য এক অংশ ইলিশে কি কি পুষ্টি গুণাগুণ রয়েছে তা এবার জানা যাক।

ইলিশ মাছের পুষ্টি গুণাগুণ

ইলিশ যে শুধুই সুস্বাদু তা কিন্তু নয়। এর মধ্যে রয়েছে মানুষের দেহের জন্য প্রয়োজনীয় অনেক পুষ্টিগুণ। সকল প্রকার পুষ্টি উপাদান বিবেচনা করে একে বলা যায় পরিপূর্ণ একটি খাবার। এর মধ্যে আছে প্রচুর পরিমাণ পুষ্টি উপাদান। এর পুষ্টিগুণ সম্পর্কে এবার আলোচনা করা যাক।

  • ইলিশ একটি প্রচুর তেল যুক্ত মাছ। কিন্তু এর মধ্যে থাকা এই তেল কিন্তু মোটেও ক্ষতিকর নয়, বরং এই তেল দেহের অনেক উপকার করে থাকে। এই তেল দেহ থেকে ক্ষতিকর কোলেস্টেরল বের করে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে।
  • এই মাছে থাকা তেল দেহের নার্ভ সিস্টেমকে শক্তিশালী করে এবং দেহের রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়।
  • এই মাছে রয়েছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড যা একই সাথে মস্তিষ্ক ও চোখের উপকার করে।
  • ইলিশ মাছ ভিটামিন-ডি এর চাহিদা বেশ ভালো ভাবেই পূরণ করে। আর এই ভিটামিন ডি দেহের ত্বক ও চুলের জন্য খুবই উপকারী।
  • মানুষের হার্ট বা হৃৎপিণ্ডকে সুস্থ রাখায় এই মাছের রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ অবদান।
  • ইলিশে থাকা ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড মানুষের স্মৃতিশক্তি বাড়াতেও কার্যকর। পাশাপাশি মানুষের বিষণ্ণতা দূর করতেও এই ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড কাজ করে।
  • এই মাছ মানুষের দেহের বিভিন্ন ব্যথাও কমায়।

কোন ইলিশের স্বাদ বেশি? ডিম ছাড়া নাকি ডিমওয়ালা?

ইলিশ মাছ খাওয়ার অন্যতম একটি কারণ হলো এর স্বাদ ও অন্যন্য গন্ধ। তবে সব ইলিশেই কিন্তু স্বাদ সমান না। গন্ধ কিংবা স্বাদ একেক রকম মাছ একেক রকম হয়। এই স্বাদ ইলিশের সাইজের উপরও নির্ভর করে। ইলিশের আকার যত বড় হয় এর স্বাদও তত বেশি হয়।

পাশাপাশি মাছের পেটে থাকা ডিমের কারণেও কিন্তু ইলিশের স্বাদের তারতম্য হয়। পেটে ডিম থাকলে বা সদ্য ডিম ছেড়ে আসা ইলিশে চর্বি কম হয়। আর ইলিশের মূল স্বাদই হলো এর চর্বিতে। তাই ডিমওয়ালা মাছে তেমন স্বাদ পাওয়া যায় না।

সমুদ্রের ইলিশ নাকি নদীর ইলিশ?

সমুদ্রের পানি হয় নোনতা পানি। তাই সমুদ্রের ইলিশের স্বাদ নদীর ইলিশের মতো হয় না। সমুদ্রের মাছ যখন উজানে বা নদীতে প্রবেশ করে তখন এরা স্রোতের বিপরীতে চলে। আর স্রোতের বিপরীতে চলার কারণে এর দেহে প্রচুর চর্বি জমা হয়। জমা হওয়া এই চর্বিই ইলিশের স্বাদের মূল কারণ। আর এই চর্বিযুক্ত মাছ নদীতেই পাওয়া যায়।

অর্থাৎ, বলা যায় সমুদ্রের চেয়ে নদীর ইলিশের স্বাদ নিসন্দেহে অনেক বেশি। তাই যাচাই বাছাই করে নদীর ইলিশ কেনাই শ্রেয় যদি এর সত্যিকারের স্বাদ পেতে চান।

ইলিশ মাছ
ইলিশের রয়েছে পুষ্টিগুণ

পদ্মার ইলিশ কেন বিখ্যাত?

বাঙালির অন্যতম প্রিয় খাদ্য ইলিশ বাঙালির কাছে এক আবেগের নাম বলা যায়। আর সেই ইলিশ যদি হয় পদ্মা নদীর তাহলে তো আর কথাই নেই। কিন্তু কেন এত সুনাম আর খ্যাতি পদ্মার ইলিশের? কি আছে এত?

আসলে স্বাদ আর গন্ধে অতুলনীয় এক খাবার হল পদ্মা নদীর ইলিশ মাছ। দুনিয়া জুড়েই খ্যাতি থাকা এই মাছের খাদ্যাভাস ও সমুদ্র থেকে পদ্মায় আসার সময় স্রোতের বিপরীতে থাকার কারণে এর দেহে জমা হওয়া তেল বা চর্বির কারণেই এর স্বাদ সমুদ্র বা অন্য নদীর মাছ থেকে আলাদা। শুধু বাংলাদেশেই নয় ভারতের কলকাতাতেও এই পদ্মার ইলিশের আবেদন অন্যরকম।

ডিমওয়ালা ও ডিম ছাড়া ইলিশ কিভাবে চিনবো?

ডিম ছাড়া ইলিশের স্বাদ অনন্য। কিন্তু বোঝার উপায় কি এর পেটে ডিম আছে কি নেই?

ডিমওয়ালা ইলিশ চেনার সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে এর পেট দেখা। ডিম থাকলে সঙ্গত কারণেই ইলিশের পেট মোটা হয়। এ সকল মাছ আকারেও সাধারণ ইলিশের চেয়ে কিছুটা মোটা ও চ্যাপ্টা হয়। এদের পেটে চাপ দিলেই পায়ুপথে ডিম বের হয়ে আসে, যা থেকে সহজেই ডিমওয়ালা মাছ চেনা যায়। কেনার সময় এই দিকটি মাথায় রাখলে সহজেই ডিম ছাড়া সুস্বাদু ইলিশ কিনতে পারবেন যা আপনার তৃপ্তি মেটাতে বাধ্য।

ইলিশ মাছের পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া

ইলিশ মাছের স্বাদ আর গন্ধ অনন্য। এটি খাওয়ার জন্য বাঙালির মন সবসময় উদগ্রীব হয়ে থাকে। কিন্তু এই মাছ কি বেশি খাওয়া ভালো? অন্য অনেক কিছুর মতোই ইলিশ মাছও বেশি খাওয়া উচিৎ নয়। কারণ এরও রয়েছে বেশ কিছু পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া। এই প্রতিক্রিয়া অবশ্য মানুষ ভেদে বিভিন্ন রকমের হয়। কারো ক্ষেত্রে বেশি আবার কারো ক্ষেত্রে কম। এবার জেনে নিই এই মাছের কি কি পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া আছে।

ইলিশের সবচেয়ে বড় সমস্যার একটি হল এলার্জি সমস্যা। অতিরিক্ত ইলিশে অনেকের এলার্জি হতে পারে। আবার অনেকের অতিরিক্ত না খেলেও এই সমস্যা হতে পারে।

ভারতীয় এক গবেষণার তথ্য মতে, বিভিন্ন সামুদ্রিক মাছ থেকে দেহে বিষক্রিয়া হতে পারে। আর মাছের মধ্যে তারা ইলিশকেও রেখেছে। তবে তাদের মতে এই সমস্যা অর্থাৎ বিষক্রিয়ার ধরণ অনেকটা এলার্জির মতোই হবে। মূলত হিস্টিডিন নামক একপ্রকার অ্যামাইনো এসিড এই মাছে থাকার কারণে এই সমস্যা হতে পারে।

তাছাড়াও ইলিশের অতিরিক্ত কাঁটা একটি অন্যতম সমস্যা। অতিরিক্ত কাঁটার কারণে বাচ্চাদের এই মাছ খেতে সমস্যা হয়। শুধু বাচ্চাই নয় অনেক সময় বড়রাও এই সমস্যায় ভুগে। আর এক্ষেত্রে গলায় কাঁটা বিঁধলে তা মারাত্মক যন্ত্রণার কারণ হয়।

জাটকা কি? কেন কিনবেন না?

ইলিশের ছোট বাচ্চা মাছই জাটকা নামে পরিচিত। অপরিণত এই ছোট জাটকা ধরা আসলে উচিৎ নয়। কারণ, এ সকল মাছ খেতে তেমন একটা মজা নয়। পাশাপাশি এ জাটকা ধরে ফেললে মাছ বড় হওয়ার সুযোগ হারায়।

অথচ এ সকল বাচ্চা জাটকা না ধরলে এরা বড় হতে পারে এবং সেখান থেকে অন্য মা মাছ বড় হয়ে ডিম ছাড়ে। এভাবে ইলিশের প্রজনন ও বংশবৃদ্ধি বজায় থাকে। পাশাপাশি জাটকা ইলিশ বড় হলে খেতেও সুস্বাদু হবে।

এছাড়াও জাটকা ধরা আইনত অপরাধ। তাই এ সকল জাটকা ধরা ও কেনা থেকে সকলেরই বিরত থাকা উচিৎ।

উপসংহার

বাঙালির সংস্কৃতির এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ ইলিশ মাছ। এই মাছ আমাদের জীবনযাত্রার সাথে মিশে গেছে। স্বাদে ও পুষ্টিতে এই মাছ আমাদের চাহিদা মিটিয়ে চলেছে দিনের পর দিন। একই সাথে আর্থিকভাবেও ইলিশ মানুষকে লাভবান করছে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও এর রপ্তানি বেড়েই চলেছে।

পদ্মার রূপালি ইলিশ বাংলাদেশের জিআই (Global Indicator -GI) হিসেবেও স্বীকৃতি পেয়েছে একবার। দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়নেও এই মাছ ভূমিকা রেখে চলেছে। তাই জাটকা না ধরে ইলিশকে বড় হতে দেওয়া এবং এর বিস্তার লাভে সহায়তা করাও আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য।

আরও পড়ুন:

রসুন কেন খাবেন? এর উপকারিতা কি?
কাজু বাদামের উপকারিতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

All Rights Reserved By Healthjus © 2021-2022