রসুনের উপকারিতা ও এর অপকারিতা কি কি?

Health and Body Food Habit

রসুন হল আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকার অন্যতম একটি খাদ্য। শুধু খাওয়ার জন্য খাওয়া নয়, উপকারিতার দিক থেকেও এটি অনন্য। এর রয়েছে অনেক গুণাগুণ। নানা উপকার করে থাকে এই রসুন৷ প্রতিদিন এটি খাওয়া মানে দেহের অনেক উপকার করা। রসুনের উপকারিতা রয়েছে অনেক। চলুন দেখে নিই রসুনের কি কি উপকারিতা রয়েছে।

রসুনের উপকারিতা

কাঁচা রসুনের উপকারিতা:

  • প্রতিদিন সকালে কাঁচা রসুন খেতে পারেন। এতে ঠান্ডা লাগার প্রকোপ কমবে।
  • স্নায়ুবিক চাপ দূরীকরণে রসুনের জুড়ি মেলা ভার।
  • রক্তে শর্করার পরিমাণ ঠিক রাখতে রসুনের রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা।
  • ভাইরাসজনিত বিভিন্ন রোগ ও নানা সংক্রামক রোগ প্রতিরোধে রসুনের রয়েছে কার্যকর ভূমিকা।
  • যকৃত ও মুত্রাশয়ের স্বাভাবিক কাজে সাহায্য করে রসুন।
  • নিউমোনিয়ার মতো সংক্রামক রোগ প্রতিরোধেও রয়েছে কাঁচা রসুনের ভূমিকা।
রসুনের রয়েছে অনেক উপকারিতা।

রসুনের আচার থেকে যে উপকারিতা পাবেন:

  • উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করবে।
  • যক্ষা প্রতিরোধে কাজ করবে।
  • হজমশক্তি বাড়িয়ে দিবে।
  • কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে দিবে।
  • বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধেও এটি বেশ ভূমিকা রাখবে। যেমন: স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধ করবে, কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধেও রসুনের আচার কাজ করে।
  • দেহের ভিতরের নানা ধরনের ক্ষতিকর ভাইরাস থেকে দেহকে রক্ষা করবে রসুনের আচার।
  • এছাড়াও চোখের ছানি পড়া রোধ করতেও এটির যথেষ্ট ভূমিকা রয়েছে।

সেদ্ধ/সিদ্ধ রসুনের উপকারিতা:

অনেকে হজম সমস্যা কারণে কাঁচা রসুন বা রসুনের আচার খেতে পারেন না। তারা চাইলে সেদ্ধ রসুন খেতে পারেন। সেদ্ধ রসুনেরও রয়েছে অনেক উপকারিতা। যে যে উপকার করে এটি:

  • খাদ্য পরিপাকে সহায়তা করে।
  • হজমশক্তি বাড়ায়।
  • ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।
  • পেটের প্রদাহ প্রতিরোধ করে।
  • বমি বমি ভাব কমায়।
  • অন্ত্রের সমস্যা প্রতিরোধ করে।
  • কৃমির সমস্যা দূর করে।
  • ব্রেন বা মস্তিষ্ক ভালো করে।
রসুন এর উপকারিতা
রসুন খাওয়ার নিয়ম মেনে চলুন।

চুলের যত্নে রসুনের উপকারিতা

চুল নিয়ে আমাদের চিন্তার শেষ নেই। তবে এই চুলের যত্নের জন্য একটি অন্যতম উপাদান হতে পারে রসুন। চুলের উপকারে রসুনের রয়েছে কার্যকর ভূমিকা। অনেকেই এ ব্যাপারটা অজ্ঞ। আসুন জেনে নিই চুলের যত্নে রসুনের ভূমিকা:

চুলের যত্নে চুলে রসুনের তেলের সাথে রসুনের রস মিশিয়ে চুলে লাগালে বেশ উপকার পাওয়া যায় এ থেকে। এছাড়াও চুল পড়া বন্ধ করতে রসুনের তেল ও রসুনের রসের সাথে ডিমের সাদা অংশ মিশিয়ে লাগালে কাজ হয়। আবার রসুনের কোয়া গুঁড়া করে কন্ডিশনার ও শ্যাম্পুর সাথে ব্যবহার করলে চুল পড়া বন্ধ হয়। এক্ষেত্রে অবশ্য রসুনের কোয়া রোদে শুকিয়ে নিতে হবে।

সেক্সে রসুনের উপকারিতা:

রসুনের উপকারিতা নিয়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় ও অন্যতম প্রচলিত কথাটি হল সেক্সে রসুন অনেক উপকারী। আসলেই কি তাই? এক্ষেত্রে বলা যায়, এই ধারণাটি সত্যি। সেক্সের ক্ষেত্রে আসলেই এর উপকারিতা রয়েছে।

রসুনের উপকারিতার মধ্যে অন্যতম একটি দিক হল সেক্স বা যৌন কার্যে এর উপকারিতা। সেক্সের ক্ষেত্রে পুরুষের জন্য বেশ উপকারী হল রসুন। কারণ, সেক্সের জন্য বা যৌন মিলনের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল রক্তের গতি। রক্তের গতির উপরই পুরুষের যৌনক্ষমতা নির্ভর করে। আর এখানেই রসুনের মূল উপকারিতাটা পাওয়া যায়। রক্তের গতি সাবলীল করতে এর রয়েছে বেশ দারুণ ভূমিকা। তাই বলা যায়, সেক্সে এর উপকারিতা নিয়ে মানুষের ধারণা কোনো অংশেই ভুল নয়।

আবার পুরুষের বীর্য বাড়াতেও রসুনের ভূমিকা রয়েছে। প্রতিদিন রসুন খাদ্য হিসেবে গ্রহণে পুরুষের বীর্যের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়।

রসুনের উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম
রসুন খান, সুস্থ থাকুন।

রসুনের অপকারিতা:

রসুনের যে শুধু উপকারিতাই রয়েছে এমন কিন্তু নয়। সব জিনিসেরই যেমন উপকারের পাশাপাশি ক্ষতিকর দিক থাকে, তেমনি এরও আছে কিছু অপকারিতা বা ক্ষতিকর দিক। এবার রসুনের অপকারিতার দিকে আলোকপাত করা যাক। যে যে অপকারিতা এর রয়েছে:

  • রসুনের মধ্যে রয়েছে ‘অ্যালিসিন’ নামক একটি উপাদান। এই উপাদান যকৃতের ক্ষতি করে। তাই বেশি পরিমাণে রসুন খাওয়া উচিৎ নয়।
  • আমেরিকার এক গবেষণা মতে, কাঁচা রসুন খালি পেটে খেলে অনেক সময় বুক জ্বালাপোড়া হতে পারে এবং এর ফলে বমি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • রসুনের মধ্যে থাকে সালফার গ্যাস। এই সালফার পেটের মধ্যে গ্যাস সৃষ্টি করে যা থেকে হতে পারে ডায়রিয়ার মতো মারাত্মক ব্যাধি। আর এ সমস্যা মূলত খালি পেটে রসুন খেলেই হয়। তাই খালি পেটে এটি খাওয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকা উচিৎ।
  • রসুন খেলে রক্তের ঘনত্ব কমে। আর এক্ষেত্রে অনেকে রক্ত পাতলা করার জন্য বিভিন্ন ঔষধ খেয়ে থাকেন। যারা এসকল ঔষধ খেয়ে থাকেন তারা রসুন খাওয়ার ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করা উচিৎ। কারণ এতে রক্তে বেশি পাতলা হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে। রক্ত বেশি পাতলা হলে বিভিন্ন মারাত্মক রোগ হতে পারে যা খুবই ভয়াবহ।
  • রসুনের আরেকটি অপকারিতা হল এটি অতিরিক্ত খেলে মুখে দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়, যা খুবই বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলে দেয় অনেক সময়।
  • এটি রক্তচাপ কমায় তা আমরা জানি। কিন্তু বেশি পরিমাণে রসুন খেলে কিন্তু রক্তচাপ প্রয়োজনের চেয়ে বেশি কমে যেতে পারে যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। তাই এক্ষেত্রে সতর্ক হওয়া জরুরী।
  • গর্ভবতী মায়েদের ক্ষেত্রে রসুন খাওয়া উচিৎ নয়। কেননা রসুন তাদের প্রসব বেদনা বা প্রসব ব্যথা বাড়িয়ে দিতে পারে যা খুবই অসহ্যকর হয়ে উঠে।
  • বেশি পরিমাণে রসুন গ্রহণ মানুষকে দৃষ্টিহীন করে দিতে পারে। কারণ, প্রয়োজনের তুলনায় বেশি রসুন খেলে চোখে হাইফিমা নামক একটি রোগ হতে পারে। এই রোগে চোখ থেকে রক্তক্ষরণ হয়। ফলে দৃষ্টিশক্তি হারানোর সম্ভাবনা থাকে।
  • অনেক গবেষণার মতে, রসুন দেহ থেকে ঘাম বের করে দেয়। তবে বেশি পরিমাণে ঘাম বের হয়ে যাওয়া কিন্তু দেহের জন্য ক্ষতিকর। কারণ, প্রয়োজনের অতিরিক্ত ঘাম বের হয়ে গেলে দেহ থেকে লবণপানিও বের হয়ে যায়, যা দেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। তাই সীমিত পরিমাণে রসুন খাওয়াই শ্রেয়।

রসুনের অপকারিতার দিক আছে ঠিকই। তবে অপকারিতার বিবেচনায় উপকারিতার পরিমাণ কিন্তু অনেক বেশি। তাই রসুনের উপকারিতা বিবেচনা করে কিন্তু বলাই যায় যে, পরিমিত পরিমাণে রসুন খেলে আপনার দেহের উপকারই হবে। আর উপকারিতা গ্রহণের জন্য অবশ্যই সীমিত পরিমাণে ও পরিমাণমতো রসুন গ্রহণ করুন ও সুস্থ থাকুন।

আরো

কাজু বাদামের উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

All Rights Reserved By Healthjus © 2021-2022